আন্তর্জাতিকসন্দেশ

পূর্ব জেরুজালেমে বন্দুকধারীর হামলায় ইজরায়েলি সেনা নি’হ’ত!

ইজরায়েল অধিকৃত পূর্ব জেরুজালেমের শোফাত শরণার্থী ক্যাম্পের একটি তল্লাশিকেন্দ্রে অজ্ঞাত বন্দুকধারীদের হামলায় এক ইজরায়েলি সেনা নি’হত হয়েছেন। শনিবার (৮ অক্টোবর) রাতভর চালানো হামলায় ওই সেনা নি’হত হয়।

রবিবার সকালে ইজরায়েলি সেনাবাহিনীর পক্ষ থেকে এ তথ্য নিশ্চিত করা হয়েছে।

এর আগে, শোফাত শরণার্থী ক্যাম্পে বন্দুক হামলা চালিয়ে দুই ইসরায়েলি সেনাকে গুরুতর আহত করায় হামলাকারীকে খোঁজার ঘোষণা দেন ইজরায়েলি পুলিশের এক মুখপাত্র।

রেড ক্রসের মতোই ইজরায়েলের জরুরি স্বাস্থ্যসেবা প্রতিষ্ঠান মেগান ডেভিড আদম (এমএডিএ) জানায়, হামলার সময় তৃতীয় একজন ব্যক্তি আহত হয়েছেন। তার পরিচয় এখনো শনাক্ত করা যায়নি। শক্তিশালী বোমার একটি অংশের আঘাতে তিনি আহত হন।

আরও পড়ুন# হারানোর ৯ বছর পর খুঁজে পাওয়া গেল পোষা বিড়াল!

রবিবার সকালে এক বিবৃতিতে ইজরায়েলি সেনাবাহিনী জানায়, একটি বন্দুক হামলায় তল্লাশিকেন্দ্রে থাকা সেনা আহত হন। তাকে উদ্ধার করে হাসপাতালে চিকিৎসা দেওয়া হচ্ছিল। চিকিৎসাধীন অবস্থায় ঐ সৈন্য মারা যান।

ইজরায়েলের দখল করা পূর্ব জেরুজালেমের আক্রমণের পর তল্লাশিকেন্দ্রের পথের পাথর রক্তে রঞ্চিত রয়েছে, যেটিতে পুলিশ লাল টেপ লাগিয়েছে। এরইমধ্যে শোফাত শরণার্থী ক্যাম্পের পাশে ও ভেতরে কয়েক ডজন কর্মকর্তা মোতায়েন করা হয়েছে। হামলাকারীকে ধরতে হেলিকপ্টার মোতায়েন করে তল্লাশী চালানো হচ্ছে ও বিশেষ বাহিনী কাজ করছে।

এদিকে, শোফাত শরণার্থী ক্যাম্পে প্রবেশ নিষেধ করা হয়েছে বলে অভিযোগ করেছে ফিলিস্তিনের রেড ক্রিসেন্ট সোসাইটি। অন্যদিকে এ ঘটনাকে ভয়াবহ হামলা বলে অভিহিত করেছেন ইজরায়েলি প্রধানমন্ত্রী ইয়ার লাপিদ। এক বিবৃতিতে ইয়ার লাপিদ বলেন, সন্ধ্যায় আহতদের পরিবারের মতোই আমার মন বেদনাহত। সন্ত্রাসীরা আমাদের পরাজিত করতে পারবে না। আমরা আগের সময়ের থেকে শক্তিশালী।

১৯৬৭ সালে ছয়দিনের আরব-ইজরায়েল যুদ্ধের পর পূর্ব জেরুজালেম দখল করে ইজরায়েল। পরবর্তীতে সেই এলাকাকে নিজেদের মানচিত্রে অন্তর্ভুক্ত করে দেশটি। তবে সেই দখলকে আন্তর্জাতিকভাবে কোনো স্বীকৃতি দেওয়া হয়নি।

 

Back to top button

Opps, You are using ads blocker!

প্রিয় পাঠক, আপনি অ্যাড ব্লকার ব্যবহার করছেন, যার ফলে আমরা রেভেনিউ হারাচ্ছি, দয়া করে অ্যাড ব্লকারটি বন্ধ করুন।