সংবাদ

বল সুন্দরী বরই চাষে সফল বদরুল, ৬ লাখ টাকা আয়ের আশা, রইল পরার্মশ

রই দেখতে ঠিক আপেলের মতো। উপরের অংশে হালকা সিঁদুর রং। খেতে সুস্বাদু। ফলটি রসালো ও মিষ্টি। নাম ‘বল সুন্দরী’। দেশের কৃষক বল সুন্দরী কুল চাষে ঝুঁকছেন। কিশোরগঞ্জ জেলার পাকুন্দিয়া উপজেলায় এবারই প্রথম বল সুন্দরী চাষ করেছেন এক কৃষক। পাকুন্দিয়া উপজেলার আদিত্যপাশা গ্রামের শফিকুল আলম এক বিঘা জমিতে বল সুন্দরী কুল চাষ করেন। জেলায় এই প্রথম কেউ বল সুন্দরী কুল চাষ করলেন।

নিজস্ব প্রতিবেদন: ফুল আর গুটির ভারে নুয়ে পড়ছে গাছগুলো। প্রতিদিন তার বাগান দেখতে অনেকেই ভীড় করছেন। দিনাজপুরের ঘোড়াঘাটে নিতাইশা এলাকার বদরুল ইসলাম বলসুন্দরী বরই চাষে সফলতা লাভের স্বপ্ন দেখছেন। তার বাগানের বরই গাছে ফুল এসেছে।

দিনাজপুরের ঘোড়াঘাটে নিতাইশা এলাকায় ৬ বিঘা জমিতে বলসুন্দরী জাতের বরই বাগান করেছেন বদরুল। বদরুল ফল বড় হলে তা বিক্রির জন্য অপেক্ষা করছেন। গাছ লাগানোর ১ বছরের মাথায়ই ফুলে ফলে ভরে গেছে বাগান। ফুল ও গুটি ফলের ভাড়ে নুয়ে পড়ছে গাছগুলো।

বদরুল বলেন, আমি ৬ বিঘা জমিতে প্রায় ১ হাজার গাছ লাগিয়েছি। বাগানটি করতে আমার ৫ লাখ টাকা খরচ হয়েছে। আমি নিজেই বাগানের পরিচর্যা করি। গাছের যত্ন নেই আর রাতেও বাগানে থাকি। গাছ লাগানো আমার নেশা। এই নেশাকেই পেশা হিসেবে নিয়েছি। আশা করছি ফলন ভালো হলে এই সিজনে ৫-৬ লাখ টাকার বরই বিক্রি করতে পারবো। আমি বরইয়ের পাশাপাশি ড্রাগন, মাল্টা এবং পেঁপের চাষ করি।

এদিকে, ঘোড়াঘাট উপজেলা কৃষি অফিসার এখলাছ উদ্দিন সরকার বলেন, এই উপজেলায় ১০ হেক্টর জমিতে বরইয়ের চাষ হচ্ছে। তার বাগানটি দেখে অনেকেই বাগান তৈরির জন্য আমাদের কাছে পরামর্শ নিচ্ছেন। আমরাও তাদের প্রয়োজনীয় পরামর্শ দিচ্ছি। বদরুল ইসলামের বাগানে প্রচুর পরিমাণে ফুল ধরেছে।

Back to top button

Opps, You are using ads blocker!

প্রিয় পাঠক, আপনি অ্যাড ব্লকার ব্যবহার করছেন, যার ফলে আমরা রেভেনিউ হারাচ্ছি, দয়া করে অ্যাড ব্লকারটি বন্ধ করুন।