ক্রিকেটখেলাধুলা

মিলারের সেঞ্চুরিতেও হার এড়াতে পারলো না দক্ষিণ আফ্রিকা!

ঘরের মাঠে দারুণ খেলছে টিম ইন্ডিয়া। অস্ট্রেলিয়াকে ২-১ ব্যবধানে হারানোর পর দক্ষিণ আফ্রিকার বিপক্ষে তিন ম্যাচ টি-টোয়েন্টি সিরিজও জিতে নিলো রোহিত, কোহলিরা। লো-স্কোরিং প্রথম ম্যাচের পর দ্বিতীয় ম্যাচে ভারতীয়দের ব্যাটে যেন ফের ঝড় উঠল। আর তাতে শেষ পর্যন্ত বিজয়ী স্বাগতিক ভারত।

গুয়াহাটিতে রবিবার (২ অক্টোবর) দক্ষিণ আফ্রিকার বিপক্ষে দ্বিতীয় টি-টোয়েন্টিতে ১৭ রানে জয় পেয়েছে স্বাগতিক ভারত। তাতে তিন ম্যাচের সিরিজ, এক ম্যাচ হাতে রেখেই জিতে গেল তারা। আগে ব্যাট করে সূর্যকুমার যাদব ও কেএল রাহুলের অর্ধশতক, বিরাট কোহলি ও রোহিত শর্মার দুটি ৪০ ছাড়ান ইনিংসে ভর করে ভারত সংগ্রহ করে ২৩৭ রান। বিশাল লক্ষ্য তাড়া করতে নেমে ডেভিড মিলারের দুর্দান্ত শতক সত্ত্বেও দক্ষিণ আফ্রিকা নির্ধারিত ২০ ওভারে ৩ উইকেট হারিয়ে ২২১ রান করতে সমর্থ হয়।

টস জিতে ভারতকে প্রথমে ব্যাট করার আমন্ত্রণ জানান দক্ষিণ আফ্রিকা অধিনায়ক টেম্বা বাভুমা। ব্যাট হাতে ভারতের দুই ওপেনার রোহিত শর্মা ও কেএল রাহুল তাণ্ডব শুরু করেন প্রোটিয়া বোলারদের ওপর। উদ্বোধনী জুটিতে মাত্র ৯.৫ ওভারেই ৯৬ রানের জুটি গড়েন তারা। ব্যাট হাতে রাহুলই বেশি আগ্রাসী ছিলেন। অন্যদিকে কিছুটা দেখে খেলছিলেন রোহিত। ৩৭ বলে ৪৩ রান করে ফেরত যান ভারত অধিনায়ক।

তবে রোহিত না পারলেও রাহুল ঠিকই হাঁকিয়েছেন অর্ধশতক। মহারাজের দ্বিতীয় শিকারে পরিণত হওয়ার আগে খেলেছেন মাত্র ২৮ বলে ৫টি চার ও ৪টি ছয়ের মারে৫৭ রান করেন তিনি।

দুই ওপেনারকে হারালেও ভারতের রানের গতি একটুও থামেনি বরং ঝড়ের গতি যেনো আরও বেড়েছে। সুর্যকুমার যাদব ও বিরাট কোহলি মিলে দক্ষিণ আফ্রিকানদের কচুকাটা করেন। মাত্র ৪০ বলের জুটিতে যোগ করেন ১০২ রান!

আরও পড়ুন: আরব আমিরাতকে হারিয়ে এশিয়া কাপে যাত্রা শুরু শ্রীলঙ্কার!

গত ম্যাচে ব্যাট হাতে ঝড় তোলা যাদব আজ ব্যাটিং উইকেট পেয়ে আরও ভয়ঙ্কর রূপ দেখান। মাত্র ২২ বলে খেলেন ৬১ রানের দুর্দান্ত এক ইনিংস। তার ইনিংসে ছিল সমান ৫টি করে চার ও ছয়ের মার। পরে রান আউটের শিকার হয়ে ফেরত যান তিনি। যাদবের বিদায়ের পর ক্রিজে এসে ক্যামিও খেলেন দীনেশ কার্তিক। ৭ বলে ১ চার ও ২ ছয়ে ১৭ রান করে অপরাজিত থাকেন এই উইকেটকিপার। অপর প্রান্তে ২৮ বলে ৪৯ রান করে অপরাজিত থাকেন কোহলিও। দক্ষিণ আফ্রিকার পক্ষে ৪ ওভারে মাত্র ২৫ রান দিয়ে ২ উইকেট নেন কেশব মহারাজ। এমন হাই-স্কোরিং ম্যাচেও বল হাতে দারুণ খেল দেখিয়েছেন এই স্পিনার।

জবাব ব্যাট করতে পেসার আর্শদীপের তোপে শুরুতেই বিপদে পড়ে প্রোটিয়ারা। অধিনায়ক টেম্বা বাভুমা ৭ বল খেলে শূন্য রানে ফেরেন। রানের খাতা খুলতে পারেননি রাইলি রুশোও। মাত্র ২ রানে দুই উইকেট হারনো প্রোটিয়াদের হয়ে পাল্টা জবাব দিতে থাকেন কুইন্টন ডি কক ও এইডেন মার্করাম। তৃতীয় উইকেট জুটিতে ৪৫ রান যোগ করে তারা। তবে শুরুতে দুই উইকেট হারানো দলটি ততক্ষণে ম্যাচ থেকে অনেকটাই ছিটকে গেছে। আকসার প্যাটেলের শিকার হয়ে ১৯ বলে ৩৩ রান করে ফেরেন মার্করাম।

এরপরই দারুণ এক জুটিতে প্রোটিয়াদের জয়ের স্বপ্ন দেখাচ্ছিলেন ডি কক ও ডেভিড মিলার। উইকেটে এসে ঝড় তুলেন মিলার, সূর্যকুমারের ইনিংসের জবাব দিতেই যেনো মাঠে নেমেছিলেন তিনি। তবে ততক্ষণে সময় গড়িয়েছে অনেকদূর। মিলারের প্রাণপণ চেষ্টা সত্ত্বেও প্রোটিয়ারা ম্যাচটি হেরে যায়।

ম্যাচ জেতাতে না পারলেও মিলার তুলে নিয়েছেন টি-টোয়েন্টি ক্যারিয়ারের দ্বিতীয় সেঞ্চুরি। মাত্র ৪৭ বলে ১০৬ রানে অপরাজিত থাকেন তিনি। তার ইনিংসে ছিল ৮টি চার ও ৭টি ছয়ের মার। ৪৮ বলে ৬৯ রানে অপরাজিত থাকেন ডি কক। ভারতের পক্ষে ৪ ওভারে ৬২ রান দিয়ে ২ উইকেট নেন আর্শদীপ। ৪ ওভারে ৫৩ রান দিয়ে ১ উইকেট নেন আকসার প্যাটেল।

Back to top button

Opps, You are using ads blocker!

প্রিয় পাঠক, আপনি অ্যাড ব্লকার ব্যবহার করছেন, যার ফলে আমরা রেভেনিউ হারাচ্ছি, দয়া করে অ্যাড ব্লকারটি বন্ধ করুন।