স্বাস্থ্য ও লাইফস্টাইল

যমজ সন্তান হওয়ার সম্ভাবনা বেশি থাকে যে সব নারীর

যমজ সন্তানে জন্ম দেওয়ার আকাঙ্খা সব বাবা-মায়ের মধ্যেই থাকে। তবে সবার গর্ভে তো আর যমজ সন্তান জন্ম নেয় না! অনেকে আশা করে যমজ সন্তানের বাবা-মা হবেন তবুও তারা পান না আবার অনেকে না চাইতেও পেয়ে যান। অনেকের মনেই প্রশ্ন থাকে, কীভাবে যমজ সন্তান হয় বা কী করলে যমজ সন্তান গর্ভে আসবে? আসলে যমজ সন্তান হওয়ার বিষয়টি বেশ কিছু বিষয়ের উপর নির্ভর করে।

যেসব নারীদের উচ্চতা বেশি তাদের যমজ সন্তানের জন্ম দেয়ার সম্ভাবনা বেশি। গবেষণায় আরও বলা হয়েছে, মায়ের উচ্চতার সঙ্গে যমজ সন্তান জন্মদানের সম্পর্ক রয়েছে। কারণ আমাদের শরীরের বেড়ে ওঠার জন্য কিছু বিশেষ বিষয় কাজ করে। যাকে বলা হয় গ্রোথ-ফ্যাক্টর। যা হচ্ছে ইনসুলিন নামের এক বিশেষ ধরণের প্রোটিন। এই ইনসুলিন বোন সেল বৃদ্ধিকে তরান্বিত করে। একই সঙ্গে মেয়েদের লম্বা হবার প্রবণতা ও যমজ সন্তান জন্মদানের বিষয়টিকে নিয়ন্ত্রণ করে।

উচ্চতা: খুব বেশি লম্বা নারীদেরও যমজ সন্তান হওয়ার সম্ভাবনা বেশি। ২০০৬ সালের একটি সমীক্ষা বলছে, ১২৯ জন নারী, যারা যমজ সন্তানের মা হয়েছেন তাদের সবারই উচ্চতা ৫ ফুট ৫ ইঞ্চির বেশি ছিল।

বয়স: বেশি বয়সে মা হলে যমজ সন্তান হওয়ার সম্ভাবনা বেড়ে যায়। বিশেষ করে ৩৫ বা ৪০ বছরের বেশি হলে। মেয়েরা যত ঋতুবন্ধের দিকে এগিয়ে যান, ততই তাঁদের শরীরে কিছু হরমোনের বদল আসে। এবং তাতেই যমজ সন্তান হওয়ার সম্ভাবনা বাড়ে।

আরো পড়ুন: বুদ্ধিমান সন্তান পেতে গর্ভবতী মায়ের যা করণীয়!

ডায়েট: একটি সমীক্ষা বলছে, যারা ভিগান তারা যমজ সন্তানের জন্ম দিচ্ছেন বেশি। মানে যারা নিরামিষাসী হওয়ার পাশাপাশি উদ্ভিদজাত দুধ খাচ্ছেন। এর একটি কারণ হতে পারে, দুগ্ধজাত খাবার খেলে শরীরে এমন কিছু পদার্থ যায় যা শরীরের সন্তান উৎপাদন পক্রিয়ায় কিছু বদল আনতে পারে। তবে এই নিয়ে এখনও বিস্তারিত গবেষণা করা হয়নি।
আইভিএফ: যারা আইভিএফ পদ্ধতিতে মা হন তারা গর্ভধারণে সফল হলে অনেক সময় একাধিক ভ্রুণ শরীরে প্রবেশ করান। ফলে যমজ সন্তান হওয়ার সম্ভাবনা বাড়ে।

বাংলাদেশেসহ বিশ্বের সকল খবর সবার আগে জানতে অনুলিপির সাথেই থাকুন।

Back to top button

Opps, You are using ads blocker!

প্রিয় পাঠক, আপনি অ্যাড ব্লকার ব্যবহার করছেন, যার ফলে আমরা রেভেনিউ হারাচ্ছি, দয়া করে অ্যাড ব্লকারটি বন্ধ করুন।