গল্প

একটি ইঁদুর এক চাষীর ঘরে গর্ত করে লুকিয়ে থাকতো, একদিন ইঁদুরটি দেখলো চাষী ও তার স্ত্রী থলে থেকে কিছু একটা জিনিস…

জীবনে আমরা কতইনা গল্প পরি। তবে এমন গল্প খুব কমই পড়ি, যেগুলা থেকে কিছুটা হলেও শিখতে পারি। আজ আপনাদেরকে ইদুর এর একটি শিক্ষনীয় গল্প বলব, যা থেকে আপনি কিছুটা হলেও শিখতে পারবেন। হাতে ১মিনিট সময় থাকলে গল্পটি পড়তে পারুন

ইঁদুর ও চাষীর গল্প ঃ একটি ইঁদুর এক চাষীর ঘরে গর্ত করে লুকিয়ে বাস করতো। চাষী একদিন খেয়াল করল, তার ঘরে ইঁদুর বাসা বেধেছে। তখন চাষী ঠিক করল, ইঁদুরটিকে কিভাবে ধরা যায়। পরেরদিন চাষী বাজার থেকে ইঁদুর ধরার ফাঁদ নিয়ে আসল। কৃষক যখন ইঁদুর ধরার ফাঁদটির প্যাকেট খুলছিলো তখন ইঁদুরটি দেখলো চাষী আর তার স্ত্রী থলে থেকে কিছু একটা জিনিস বের করছেন।

ইঁদুর ধরার ফাঁদ
ইঁদুর ধরার ফাঁদ। ছবিঃইন্টারনেট

তখন ইঁদুর ভাবছিল কতইনা মজার খাবার আছে প্যাকেটের ভেতরে, তাই সে গুটি গুটি পায়ে এগোলো। এগিয়ে দেখলো সেটা খাওয়ার কিছু নয়, সেটা ছিল একটা ইঁদুর ধরার ফাঁদ। ফাঁদ দেখে ইঁদুর পিছোতে থাকলো এবং ইঁদুরটি দৌড়ে দৌড়ে তার বন্ধুদের কে সতর্ক করতে চিৎকার করে বলতে লাগল বাড়িতে ইঁদুর ধরার ফাঁদ বসিয়েছে, সবাই সাবধান!

আরো পড়ুনঃ মঙ্গলপুর: জন-মানবশূন্য এক গ্রামের গল্পকথা!

তখনই ইঁদুরটি বাড়ির পিছনের এক খোপে থাকা তার বন্ধু পায়রাকে গিয়ে বলল, বাড়িতে ইঁদুরটি ধরার ফাঁদ বসিয়েছে! তখন খোপে পায়রাটি বলল, এইযে মিস্টার ইদুর, জানি এটা তোমার জন্য বিরাট সমস্যার, তাতে আমার কি? আমি কি ওই ফাঁদে পড়তে যাব না কি?

তখন ইঁদুর তার বন্ধু মুরগীকে গিয়ে এই কথা বলল। মুরগী ইঁদুরকে হেয় করে বলল, যা ভাই এটা আমার সমস্যা নয়, এটাতে আমার কিছু আসে যায় না। তবে চিন্তা করোনা নিশ্চিন্ত থাকো খারাপ সময় তোমার জন্য আমার দোয়া থাকবে।

ইঁদুরটি হাঁপাতে হাঁপাতে মাঠে গিয়ে ছাগলকে চাষীর ফাঁদ পাতার খবরটি শোনালো। ছাগল বন্ধু ইঁদুরের কথা শুনে হেসে লুটোপুটি খেল আর বলল তাতে আমার কী? চিন্তার কিছুই নেই, তুমি সাবধানে থেকো। ইঁদুর তার বন্ধদের এমন আচরনে খুব কষ্ট পেল এবং মনমরা হয়ে তার ঘরে ফিরল।

ইঁদুরের বন্ধু ছাগল
ইঁদুরের বন্ধু ছাগল। ছবিঃ ইন্টারনেট

সবকিছু ভুলে সে ফাঁদ কে মোকাবেলা করার জন্য প্রস্তুত হলো। ঠিক ঐ রাত হতে না হতেই হৃদয় জুড়ানো একটি আওয়াজ শুনতে পেল চাষীর স্ত্রী। ইঁদুরের ফাঁদ স্বীকার করলে যেমন আওয়াজ হয় তেমনি আওয়াজ। কৃষকের স্ত্রী মনে মনে ভাবল ইঁদুরটি ফাদে পড়েছে। সে ছুটে গিয়ে ইঁদুর ধরার ফাঁদ এর কাছে গেল। কিন্তু অন্ধকার থাকায় সে দেখতে পেল না ফাঁদে কি আটকা পড়েছে। ঠিক তখনই ঘটল অঘটন!

ফাঁদে আটকা পড়েছিল একটি বিষাক্ত সাপ। অন্ধকারে চাষীর স্ত্রী সাপের লেজকে ইঁদুর ভেবে বের করলো, আর সাপটি তাকে কাঁমড়ে নিল। অবস্থা খারাপ দেখে চাষীটি ওঝাকে ডাকলো। ওঝা তাকে পায়রার জুস খাওয়ানোর পরামর্শ দিল। চাষী ইঁদুরের বন্ধু পায়রাটি দিয়ে জুস বানালো।

আরো পড়ুনঃ লিমেনসিতা: নারী থেকে পুরুষ হতে চাওয়া সংগ্রামের গল্প!

পায়রাটি এখন হাঁড়িতে। চাষীর স্ত্রীর এই সংবাদ শুনে তাদের বাড়িতে আত্মীয়-স্বজন, পাড়া-প্রতিবেশী এসে হাজির হল। তাদের খাওয়ার বন্দোবস্তের জন্য মুরগীকে যবাই হল। মুরগীও এখন হাঁড়িতে। দুইদিন পর চাষীর স্ত্রী মা’রা গেল। আর তার দোয়া অনুষ্ঠানে ছাগলটিকে য’বাই হল। ছাগলটিও হাঁড়িতে চলে গেল। সুযোগ বুঝে ইঁদুরটি বহুদূরে পালিয়ে গিয়েছিল।

শিক্ষাঃ এই গল্প থেকে আমরা শিক্ষা নিতে পারি, যদি কেউ আপনাকে তার সমস্যার কথা শোনায় আর আপনি ভাবেন যে এটাতো আমার সমস্যা নয়, যার সমস্যা তার ব্যাপার! তবে একটু দাঁড়ান, আর একবার ভালো করে চিন্তা করুন, আপনার অবস্তাও কখনো এমন হতে পারে। মানুষ মাত্রই সমাজবদ্ধ জীব। সমাজের একটা অংশ, একটি ধাপ বা পর্যায়, একজন নাগরিক যদি বিপদে থাকেন তবে পুরো দেশ বিপদে পড়তে পারে! মনে রাখবেন মানুষ মানুষের জন্য আর মানবতা সবার জন্য।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Back to top button