Trai কীভাবে জালিয়াতি কল, বার্তাকে ঠেকিয়ে দিতে পারে

অনুলিপির আজকের আয়োজন Trai কীভাবে আপনার ফোনে আসা জালিয়াতি কল, বার্তাকে ঠেকিয়ে দিতে পারে। এই বিষয়ে বিস্তারিত জানাচ্ছেন প্রযুক্তি বন্ধু সাদাফ আমিন।

জনপ্রিয় ওয়েব সিরিজ জামতারার কথা নিশ্চয় আপনার মনে আছে?

ভারতের একটি ছােট ঝাড়খন্ড শহর। প্রতারণামূলক কল এবং এসএমএস এর মাধ্যমে কিভাবে সাধারণ মোবাইল ফোন ব্যবহারকারীদের টাকা লুটপাট করা হয়— সে দৃশ্য আপনারা সবাই দেখেছেন।

Trai টেলিকম বিভাগ এবং সেক্টর নিয়ন্ত্রক এখন কৃত্রিম বুদ্ধিমত্তা (AI) ব্যবহার করে এইসব জালিয়াতি কল এবং বার্তাগুলোকে ঠেকানোর জন্য দ্বিগুণ প্রচেষ্টা চালাচ্ছে।

টেলিকম বিভাগ সম্প্রতি ভারতের হরিয়ানার মেওয়াতের একটি উদীয়মান সাইবার ক্রাইম হটস্পটে একটি AI-ভিত্তিক তদন্ত পরিচালনা করেছে। এই তদন্তে গ্রাহক বেস নিশ্চিত করার জন্য সিম যাচাইকরণ এবং সাইবার জালিয়াতি নিরসনে টেলিকম বিভাগ ১৪,০০০ টির মতাে জাল সংযােগ সনাক্ত করেছে।

এখন, টেলিকম রেগুলেটরি অথরিটি অফ ইন্ডিয়া (Trai) স্থির গ্রাহক পরিচয় মডিউল (সিম) কার্ড, বা একটি নির্দিষ্ট স্থানে সংযােগ নিরীক্ষণের জন্য এআই-এর সুবিধা নিতে চাইছে, যাতে টেলিকম বিভাগের একটি SOS অনুসরণ করে এই ধরনের প্রতারণামূলক জালিয়াত কলগুলি রােধ করা যায়।

এই জালিয়াতি কল বা এবং বার্তাগুলো দিন দিন বেড়েই চলেছে যার কারণে দেশে বিদেশে হাজার হাজার মোবাইল ফোন ব্যবহারকারী স্ক্যামের শিকার হয়ে তাদের টাকাপয়সা এবং তথ্যের নিরাপত্তা হারাচ্ছে।

ভারতে একজন ব্যক্তি সর্বোচ্চ নয়টি সিম কার্ডের মালিক হতে পারে। ঝাড়খন্ড এবং উত্তর-পূর্বে যেখানে এটি মাত্র পাঁচটিতে সীমাবদ্ধ।
সাধারণত এই নিয়মের অপব্যবহার করে অপরাধীরা লক্ষ লক্ষ মানুষকে কল করার জন্য সেই সিমগুলির প্রতিটির মালিকানা ব্যবহার করে থাকা। এভাবেই দুবৃত্তরা প্রতারণার জন্য সাধারণ ব্যবহারকারীদের টার্গেট করে অর্থ উপার্জন করে থাকে।

আরো পড়ুন: বাংলার ঐতিহ্যবাহী পটচিত্রের চিত্রকথা!

এ বিষয়ে জানতে চাওয়া হলে ট্রাই কর্মকর্তা বলেন— “ নিয়ন্ত্রক বিভাগ এই নীতিতে কাজ করছে যে একটি আসল সিম কার্ড মাঝে মাঝে অবস্থান পরিবর্তন করবে। কিন্তু একাধিক সিম কার্ড – সম্ভবত একজন ব্যক্তির নামে – একটি নির্দিষ্ট সময়ের মধ্যে শুধুমাত্র একটি স্থান থেকে ব্যবহার করা হচ্ছে। যা সাইবার অপরাধীদের দ্বারা বৈধ প্রতিষ্ঠান হিসাবে জাহির করে ফিশিং স্ক্যাম সংগঠনের জন্য ব্যবহৃত হতে পারে।”

এই সমস্যার সমাধান কী হতে পারে এই প্রশ্নের জবাবে একজন ঊর্ধ্বতন ট্রাই কর্মকর্তা ইন্ডিয়া অব টাইমসকে বলেন—
“আমরা কৃত্রিম বুদ্ধিমত্তার (Al) মতাে প্রযুক্তি ব্যবহার করার কথা ভাবছি যেগুলি প্রতারণামূলক কলগুলি রােধ করার জন্য নির্দিষ্ট স্থানে সক্রিয় স্থির সিমগুলিকে ট্র্যাক করতে পারবে।”

আরো পড়ুন: কোন ০৭ টি প্রচলিত মিথ বাসা বাঁধছে মোবাইল কিংবা কম্পিউটারে!

টেলিকম ওয়াচডগ বিশ্বাস করে যে এআই-সক্ষম প্রক্রিয়াগুলি সন্দেহজনক মােবাইল সিম কার্ডগুলিকে বিশ্লেষণ এবং সনাক্ত করতে সহজেই সাহায্য করতে পারে যদি সেগুলি কোনও নড়াচড়া ছাড়াই একটি নির্দিষ্ট স্থানে সক্রিয় পাওয়া যায়।

একটি কার্যকর সমাধানে পৌঁছানাের জন্য নিয়ন্ত্রক বিভাগ বিশ্বব্যাপী অনুশীলনগুলিও পরীক্ষা করছে।
রাজস্থান এবং উত্তর প্রদেশের সীমান্তবর্তী মেওয়াত অঞ্চলে এখন ফোকাস করা হয়েছে যেখানে দিনদিন সিনেমার জামতারা শহর হওয়ার সম্ভাবনা বেড়ে চলছে।

সাম্প্রতিক অতীতে মেওয়াতে কল ব্যবহার করে প্রায় ৭০% সাইবার জালিয়াতির ঘটনা ঘটতে দেখা গেছে। এর মধ্যে ফিশিং কল এবং ব্যাঙ্কিং এবং অনলাইন মার্কেটপ্লেসগুলির সাথে সম্পর্কিত জালিয়াতি অন্তর্ভুক্ত।

Trai অতীতে বিরক্তিকর কল এবং অযাচিত বার্তাগুলো নিরুৎসাহিত করার জন্য বিভিন্ন পদক্ষেপ নিয়েছে। Trai এর পরবর্তী পদক্ষেপ জালিয়াতি কল ও বার্তা ঠেকানো কতটা সফল হতে পারে সমগ্র টেকবাসী তা দেখার অপেক্ষায় রয়েছে।

Leave a Reply

Your email address will not be published.

Back to top button

Adblock Detected

Dear Viewer, Please Turn Off Your Ad Blocker To Continue Visiting Our Site & Enjoy Our Contents.