ডিটক্স ড্রিংকস: গরমে আপনাকে হাইড্রেটেড ও ফিট রাখবে!

গরমে যেসব ডিটক্স ড্রিংকস আপনাকে হাইড্রেটেড ও ফিট রাখবে তার রেসেপি!

জলবায়ুর পরিবর্তনে দিন দিন পৃথিবীর তাপমাত্রা বেড়েই চলছে। আমাদের দেশেও প্রতিনিয়ত তাপমাত্রা বেড়ে চলছে। এই তাপমাত্রায় নিজেকে সুস্থ রাখতে মানুষ নানা পদ্ধতি অবলম্বন করছে, তবুও যেন ডিহাইড্রেট বা হিট স্ট্রোকের মতো সমস্যা পিছুই ছাড়ছে না। এই গরমের সমস্যা সমাধানে আজকে আমাদের এই আর্টিকেল। চলুন জেনে নেওয়া যাক— গরমে যেসব ডিটক্স ড্রিংকস আপনাকে হাইড্রেটেড ও ফিট রাখবে তার রেসেপি! আর এই ডিটক্স ড্রিংকসটাই আবার কী!

স্বাস্থ্যসচেতন মানুষদের কাছে ডিটক্স ড্রিংকস বা ডিটক্স ওয়াটার খুবই জনপ্রিয় একটি পানীয়। গরমে ব্যস্ততার মাঝে নিজেকে সতেজ রাখতে ডিটক্স ড্রিংকস অনেকেরই পছন্দের তালিকায় প্রথম স্থান করে নিয়েছে। এছাড়াও গরমে হাইড্রেটেড ও ফিট থাকতে খুব সহজেই বিভিন্ন ফল বা সবজি দিয়ে বানিয়ে ফেলা যায়। যা বাইরের কেনা প্যাকেটজাত জুসের তুলনায় অনেক বেশি স্বাস্থ্যসম্মত।

⏩ আরও পড়ুন: নারীরাই বেশি ভিটামিনের অভাবে ভোগেন!

কিন্তু অনেকের মনেই প্রশ্ন জাগতে পারে, এই ডিটক্স ড্রিংকস আদতে কী!

ডিটক্স ড্রিংকস 

আসলে ডিটক্স ওয়াটার হলো এমন একটি পানীয় যা আমাদের শরীরের ভেতর থাকা সকল দূষিত পদার্থ বের করে দিতে সহায়তা করে এবং আমাদের সুস্থ রাখে। কারণ ডিটক্স ওয়াটার বানাতে কোনো রাসায়নিক পন্য ব্যবহৃত হয় না। কেবলমাত্র পানি, বিভিন্ন ধরনের ফল, পুদিনা পাতা, আদা, ইত্যাদি ধরনের প্রাকৃতিক ও স্বাস্থ্যসম্মত ফল বা সবজি ব্যবহার করা হয়। আর এর বিভিন্ন ধরনের স্বাস্থ্যগত গুণও রয়েছে।

তবে ডিটক্স ড্রিংকস জনপ্রিয় হয়ে ওঠার অন্যতম কারণ এটি খুব সহজেই তৈরি করা যায়। তো চলুন কিছু ডিটক্স ড্রিংকসের রেসেপি জেনে নেই—

লেবু-পুদিনার ডিটক্স ওয়াটার:

খুব সহজে লেবু-পুদিনার ডিটক্স ওয়াটার বানিয়ে নিতে পারবেন। আর স্বাদ বাড়াতে চাইলে এর সঙ্গে যোগ করতে পারেন শসা কুচি, আনারস, কমলা লেবু, ইত্যাদি। পুষ্টিবিদেরা সাধারণ পরামর্শ দেন সকালের নাস্তায় ডিটক্স ড্রিংকস পান করার। কারণ, এতে শরীরের বাড়তি ওজন নিয়ন্ত্রণে থাকে।

ডিটক্স ওয়াটার বানাতে নরমাল পানিতে সব উপকরণ ৩০-৪০ মিনিট ভিজিয়ে রাখুন, এরপর ছেঁকে নিলে তৈরি হয়ে যাবে উপকারী ডিটক্স ওয়াটার। আপনি চাইলে দুপুরেও এই ডিটক্স ওয়াটার পান করতে পারবেন। তবে সকালে পান করা বেশি ভালো।

ডাবের পানি সাথে লেবু আর পুদিনা পাতার ডিটক্স ওয়াটার:

লেবু এবং পুদিনা পাতা সমেত ডাবের ডিটক্স ওয়াটার অন্যতম একটি জনপ্রিয় ও সতেজ পানীয়। এখানে পানির পরিবর্তনে ডাবের পানি ব্যবহার করতে হবে। এরপর, ডাবের পানির মধ্যে সকল উপাদান ভিজিয়ে রাখুন ৩০-৪০ মিনিট। পরে ছেঁকে নিলেই হয়ে যাবে ডিটক্স ওয়াটার। ডাব আমাদের দেশে খুবই সহজলভ্য এবং ডাবের পানি আমাদের সারাদিন ক্লান্তি দূর করে, সেই সাথে শরীরের পানি চাহিদাও দূর করে। এছাড়াও এই ডিটক্স ড্রিংকসটি আপনার হজমশক্তি বৃদ্ধি করবে এবং রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতাও বাড়িয়ে তুলবে।

⏩ আরও পড়ুন: বর্ষা মৌসুমে পায়ের বিশেষ যত্ন!

কমলা আর গাজরের ডিটক্স ড্রিংকস:

কমলালেবুতে প্রচুর পরিমাণ ভিটামিন সি থাকে, গাজরেও প্রচুর ভিটামিন ও অন্যান্য পুষ্টি উপাদান থাকে এবং দেখা যায়, অধিকাংশ মানুষই কমলালেবু পছন্দ করেন। তাই খুব সহজে বানিয়ে নিতে পারেন কমলা ও গাজর দিয়ে ডিটক্স ড্রিংকস। এই কমলা আর গাজরের ডিটক্স ড্রিংকস বানাতে প্রথমে জুসারের মাধ্যমে আলাদা আলাদা ভাবে গাজর ও কমলার জুস বানিয়ে নিন। এরপর, সামান্য আদা ব্লেন্ড করে রসটা ছেঁকে নিন। এরপরে সবগুলো উপকরণ একসাথে মিলিয়ে নিলেই তৈরি হয়ে যাবে পুষ্টিকর ডিটক্স ড্রিংকস। আর এই ডিটক্স ড্রিংকস ছোটো-বড়ো সবার জন্য উপযুক্ত এবং অতিরিক্ত গরমে হাইড্রেটেড ও সতেজ থাকতে চাইলে এর সাথে কিছু বরফকুচিও যোগ করতে পারেন।

শসার ডিটক্স ড্রিংকস:

শসা খুবই পরিচিত একটি জিনিস। আমরা সালাদে শসা খেয়ে থাকি। এই শসার উপকারিতার যেমন শেষ নেই, তেমনি এই শসা দিয়ে বিভিন্ন খাবার তৈরি করাও যায়৷ আর শসার ডিটক্স ড্রিংকস খুবই উপকারি৷ শসার ড্রিটক্স ড্রিংকস বানাতে শসার সাথে কেবল পরিমাণ মতো পুদিনা পাতা হলেই হয়। ড্রিংকস বানাতে শসা ও পুদিনা পাতা একসঙ্গে ব্লেন্ড করে ছেঁকে নিতে হবে। এরপরে এতে সামান্য গোলমরিচের গুড়ো ও লেবুর রস ছিটিয়ে দিতে হবে৷ তাহলেই তৈরি হয়ে যাবে ডিটক্স ডিংকস।

কলা দিয়ে ডিটক্স স্মুদি:

এতক্ষণ যতগুলো ড্রিটক্স ড্রিংকসের রেসেপি জেনেছি, সবগুলোর চেয়ে স্বাদে মজার ডিটক্স স্মুদি হলো কলার ডিটক্স স্মুদি। এই রেসিপিতে প্রয়োজন ৩-৪ টি খেজুর, অল্প পরিমাণে আদা কুঁচি, মাল্টা বা লেবুর রস, চিয়া বীজ। সবগুলো উপকরণ একসাথে নিয়ে ব্লেন্ড করে নিন। তাহলেই তৈরি হয়ে যাবে স্বাস্থ্যকর ডিটক্স স্মুদি। এই স্মুদি শরীরে এনার্জি যোগায় এবং এতে চিনি ব্যবহার না করায় তা আমাদের ফিট রাখতেও সহায়তা করে।

লিচুর ডিটক্স ড্রিংকস:

মৌসুমি ফলগুলোর ডিটক্স ড্রিংকসের মধ্যে অন্যতম হলো লিচুর ডিটক্স ড্রিংকস। আর গরমে লিচু খুবই সহজলভ্য। এই ডিটক্স ড্রিংকস বানাতে কুঁচি করে আদা কেটে নিন, এরপর অর্ধেক লেবুর রস, ১ কাপ লিচুর জুস নিন। এরপরে লবণ ও বরফকুচি দিয়ে সবগুলো একত্রে মিশিয়ে নিন এবং ব্লেন্ড করে নিন। এই ড্রিংকসটি খুবই রিফ্রেশিং একটি ড্রিংকস এবং খুবই মজাদার।

⏩ আরও পড়ুন: গোরুর মাংসের তিনটি সহজ ও মজাদার রেসিপি!

বর্তমানে পৃথিবীর তাপমাত্রা যে হারে বাড়ছে, তাতে হাইড্রেটেড ও ফিট থাকতে এই ডিটক্স ড্রিংকসগুলো খুবই প্রয়োজন। তবে এই রেসিপি ব্যতীত আপনি চাইলে বিভিন্ন ফল, মসলা ও সবজি দিয়ে নিজের পছন্দ সই ডিটক্স ড্রিংকস বানিয়ে নিতে পারেন। এইসব প্রাকৃতিক উপাদানের সহযোগে বানানো পানীয় শরীরের জন্য খুবই উপকারি। মেদ কমানো, খাবারের রুচি বাড়াতেও বেশ ভালো কার্যকরী। তাই নিজে এবং পরিবারের বাকি সদস্যদের প্রতিদিন সকালে এক গ্লাস সতেজ পানীয় দিয়ে, স্বাস্থ্য চিন্তা থেকে অনেকটাই মুক্ত হতে পারবেন।

প্রিয় পাঠক, আজকের পোস্ট এই পর্যন্ত। আর্টিকেলটি ভালো লাগলে অবশ্যই অন্যদের সাথে শেয়ার করবেন এবং এই ধরনের নিত্য নতুন টিপস ও আর্টিকেল পেতে অনুলিপির সাথেই থাকুন।

Related Articles

Leave a Reply

Your email address will not be published.

Back to top button

Adblock Detected

Dear Viewer, Please Turn Off Your Ad Blocker To Continue Visiting Our Site & Enjoy Our Contents.