বিভিন্ন পদে ২৫ জনকে নিয়োগ দিবে খুলনা শিপইয়ার্ড

দক্ষ - অদক্ষ শ্রমিক, ক্লিনার ও সুইপার পদে নিয়োদ দিচ্ছে প্রতিষ্ঠানটি।

বাংলাদেশ নৌবাহিনী পরিচালিত খুলনা শিপইয়ার্ড লিমিটেডে ০৫টি পদে ২৫ জনকে নিয়োগ দেওয়া হবে। আগ্রহীদের আগামী ০৪ জুলাই সরাসরি সাক্ষাতের জন্য উপস্থিত থাকতে হবে।

প্রতিষ্ঠানের নাম: খুলনা শিপইয়ার্ড লিমিটেড।

পদের বিবরণ:  ২৫ জনকে নিয়োগ দিবে খুলনা শিপইয়ার্ড

চাকরির ধরন: অস্থায়ী

প্রার্থীর ধরন: নারী-পুরুষ

কর্মস্থল: খুলনা

বয়স: ৩০ জুন ২০২২ তারিখ ১৮-৩০ বছর। বিশেষ ক্ষেত্রে শিথিলযোগ্য।

আবেদন ফরম: আগ্রহীরা প্রতিষ্ঠানটির ওয়েবসাইট www.khulnashipyard.com থেকে আবেদনপত্র সংগ্রহ করতে পারবেন।

আবেদনের ঠিকানা: ব্যবস্থাপনা পরিচালক, খুলনা শিপইয়ার্ড লিমিটেড, বাংলাদেশ নৌ বাহিনী, খুলনা।

আবেদন ফি: ৫০ টাকা ক্যাশ জমা দিতে হবে।

পরীক্ষার জন্য উপস্থিত থাকার তারিখ ও সময়: ০৪ জুলাই ২০২২ তারিখ সকাল ০৮টা ৩০ মিনিট।

পরীক্ষার জন্য উপস্থিত থাকার ঠিকানা: হিউম্যান রিসোর্স ম্যানেজমেন্ট সেকশন, খুলনা শিপইয়ার্ড লিমিটেড, খুলনা।

উল্লেখ্য, ১৯৪৭ সালের ভারত ভাগের পর পাকিস্তান ডেভেলপমেন্ট করপোরেশন (পিআইডিসি) খুলনায় একটি শিপইয়ার্ড নির্মাণের উদ্যোগ নেয়। এর জন্য তারা জন্য পশ্চিম জার্মানির মেসার্স স্টাকেন শনকে নিযুক্ত করে। ১৯৫৪ সালে নির্মাণকাজ শুরুর পর খুলনা শিপইয়ার্ড ১৯৫৭ সালের ২৩ নভেম্বর থেকে উৎপাদনে যায়। সে সময়কার রূপসা নদীর প্রাকৃতিক সীমাবদ্ধতা ও গভীরতাকে বিবেচনায় রেখে সর্বোচ্চ ৭০০ টন (আড়াই হাজার টন) হালকা ওজনের কার্গো ধারণসম্পন্ন জাহাজ নির্মাণ ও মেরামতের সুযোগ-সুবিধা রেখে এটি নির্মিত হয়।

উৎপাদনের শুরুর পর থেকে ১৯৫৯ সাল পর্যন্ত নির্মাণকারী প্রতিষ্ঠান ব্যবস্থাপনার দায়িত্ব পালন করে। পরে ১৯৬৫ সাল পর্যন্ত জার্মান এবং ব্রিটিশ ব্যবস্থাপনায় কার্যক্রম পরিচালিত হয়। ১৯৬৫ সালে ইস্ট পাকিস্তান ইন্ডাস্ট্রিয়াল ডেভেলপমেন্ট করপোরেশন (ইপিআইডিসি) এটি পরিচালনার দায়িত্ব নেয়।

বাংলাদেশ স্বাধীনতা লাভ করার পর বাংলাদেশ স্টিল অ্যান্ড ইঞ্জিনিয়ারিং করপোরেশন (বিএসইসি) এটি পরিচালনার দায়িত্ব পায়। প্রথম দিকে সফলভাবে পরিচালিত হলেও ৮০’র দশকের মাঝামাঝি সময় থেকে প্রতিষ্ঠানটি লোকশানে পড়তে থাকে। ৯০’র দশকে এসে এটি লোকসানের ভারে বন্ধ হওয়ার আশঙ্কায় পড়ে ও দেনার পরিমান ৯৩ কোটি ৩৭ লাখ টাকায় পৌছে। সেই সময়ে সরকার প্রতিষ্ঠানটিকে রুগ্ন শিল্পপ্রতিষ্ঠান হিসেবে চিহ্নিত করে। পরে ১৯৯৯ সালের ৩ অক্টোবর বাংলাদেশ নৌবাহিনীকে প্রতিষ্ঠানটির দায়িত্ব দেওয়া হয়।

২০১৭-১৮ অর্থবছরে খুলনা শিপইয়ার্ড লিমিটেড ছোট বড় জাহাজ নির্মাণ ও মেরামতসহ বিভিন্ন খাতে প্রায় ১৬৫ কোটি টাকা আয় করে।

এখানেই দেশের প্রথম যুদ্ধজাহাজ (দুর্গম ও দুর্জয়) এবং সাবমেরিন টাকবোড নির্মাণ করা হয়। যার ফলে যুদ্ধজাহাজ নির্মাণ দেশ হিসেবে বাংলাদেশের পরিচিত পায়।

Related Articles

Leave a Reply

Your email address will not be published.

Back to top button

Adblock Detected

Dear Viewer, Please Turn Off Your Ad Blocker To Continue Visiting Our Site & Enjoy Our Contents.